জেরিনের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কবর থেকে উত্তোলন

প্রকাশিত: ৮:৫৫ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩০, ২০২০

দিপু আহমেদ, নবীগঞ্জ(হবিগঞ্জ)
হবিগঞ্জের এসএসসি পরীক্ষার্থী মদিনাতুল কোবরা জেরিন হত্যার ঘটনায় তার মরদেহ কবর থেকে তোলা হয়েছে ময়নাতদন্তের জন্য ।

হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) রবিউল ইসলাম জানান জেরিনের মরদেহ কবর থেকে তোলা হয় বৃহস্পতিবার দুপুরে।

তিনি জানান, ময়নাতদন্ত ছাড়াই দাফন করা হয়েছিল জেরিনের মরদেহ সবাই ভেবে নিয়েছিল এটা সড়ক দুর্ঘটনা । পরে জানা যায় এটি দুর্ঘটনা নয়, জেরিনকে হত্যা করা হয়েছে। তাই ময়নাতদন্তের জন্য জেরিনের মরদেহ আদালতের নির্দেশে কবর থেকে উত্তোলন করা হয়েছে।

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লুকড়া ইউনিয়নের ধল গ্রামের আব্দুল হাইয়ের মেয়ে জেরিনের এ বছর স্থানীয় রিচি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার কথা ছিল সে ছিল খুব মেধাবী ছাত্রী।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) রবিউল ইসলাম জানান, মদিনাতুল কিবরিয়া জেরিনকে প্রেমে সাড়া না দেওয়ায় গত ১৮ জানুয়ারি সকালে সদর উপজেলার রিচি এলাকায় সিএনজিচালিত অটোরিকশা থেকে ফেলে গুরুতর আহত করে। পরে তাকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান পরদিন সিলেটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। নিহতের পরিবার প্রথমে এটিকে সড়ক দুর্ঘটনা মনে করে ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ দাফন করে ফেলে। পরে বিষয়টি পরিকল্পিত জানার পর জেরিন এর পিতা আব্দুল হাই হত্যা মামলা দায়ের করা হলে পুলিশ দ্রুত রহস্য উদঘাটন করে। তিনি জানান, তবে জেরিনের ‘দুর্ঘটনা’র তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানতে পারে, জাকির হোসেন নামে এক বখাটে দীর্ঘদিন ধরে জেরিনকে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। কিন্তু ঘটনার পর থেকে তাকে এলাকায় দেখা যাচ্ছে না। পুলিশ এ তথ্যের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করে। এক পর্যায়ে ধল এলাকা থেকে জাকিরকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর তাকে জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে আসে জেরিনের মৃত্যু কোনো সাধারণ দুর্ঘটনা নয়, রীতিমতো খুন! এরই মধ্যে জেরিনকে হত্যার কথা স্বীকার করে হবিগঞ্জের জ্যেষ্ঠ বিচারক হাকিম সুলতান উদ্দিন প্রধানের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে জাকির। তার দুই সহযোগী এখনও পলাতক রয়েছে। তাদের অতিশীঘ্রই গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতাধীন করা হবে।